শ্রেণিকক্ষেই ছাত্রকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করায় শিক্ষিকার কারাদণ্ড!

0

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আবারও এক ছাত্রের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হলেন শিক্ষিকা। আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য। জানা গেছে, ক্লাসরুমের মধ্যেই সেই ছাত্রের সঙ্গে আপত্তি থাকা সত্ত্বেও তার সঙ্গে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করেন তিনি।

কানেকটিকাটের মেডিসনের ৩৯ বছর বয়সী সেই নারী একটি স্কুলের ইংরেজির শিক্ষিকা। সেই শিক্ষিকা তার স্কুলের ছাত্রদের অশ্লীল মেসেজ এবং নিজের অশ্লীল সেলফি তুলে পাঠান। শুধু তাই নয়, তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনেরও আমন্ত্রণ জানান।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এই যৌন নীপিড়নের শিকার সেই ছাত্রের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ সেই ছাত্রের বক্তব্য, অভিযুক্ত শিক্ষিকা দুপুরের খাবার খাওয়ার অজুহাতে তাকে ডেকে নিয়ে যান এবং জোর করে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করেন৷ আদালত সেই শিক্ষিকাকে ৩ বছরের জন্য কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেছে৷

এর আগেও ২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা রাজ্যের হোলিস মিডল স্কুলের শিক্ষিকা জেনিফার কাসওয়েল কর্তৃক তারই এক ছাত্রের সাথে যৌন সম্পর্ক করার কারনে আদালত তাকে ১৫ বছরের সাজা দেয়। তবে দোষ স্বীকার করায় পরবর্তীতে সাজা ৫ বছর মওকুফ করে ১০ বছর করা হয়।

প্রায় রোজই ওই কিশোরকে নিজের শয্যাসঙ্গী বানাতেন তিনি। এমনকী ছেলেটিকে নিয়ে গাড়িতে করে বেড়াতে যেতেন। ফাঁকা রাস্তায় গাড়ি থামিয়ে দু’জনে যৌনসঙ্গম করতেন। এমনকি স্কুল ছাড়ার আগে তারা ফাঁকা শ্রেণিকক্ষেও সঙ্গম করেছেন বলে তিনি স্বীকার করেছেন। একদিন গোটা বিষয়টা স্থানীয় বাসিন্দাদের চোখে পড়ে যায়। তারাই খবর দেয় পুলিশে। তার পর থেকে পুলিশ নজরদারি শুরু করে। একদিন মিসিসিপি বেড়াতে গিয়ে বেস্ট ওয়েস্টার্ন হোটেলে ওঠে দু’জন। সেখানে হোটেলের ঘরে যখন দু’জনই নগ্ন অবস্থায় সঙ্গমে রত, তখন পুলিশ হানা দিয়ে ওই শিক্ষিকাকে গ্রেফতার করে। যদিও জেনিফার দাবি করেছেন, ছাত্রটিরও শারীরিক মিলনে সম্মতি ছিল। কিন্তু মার্কিন আইন অনুযায়ী, নাবালকের সম্মতির কোনও দাম নেই। সম্মতি নিয়েও যদি নাবালকের সঙ্গে কোনও মহিলা যৌনসঙ্গম করে, তা হলে সেটা ধর্ষণ বলেই বিবেচিত হবে।


এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। ebizctg.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে ebizctg.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply